ফিচারবিদেশমনন-অনুধাবন

ইথিওপিয়ার চাকতি অলংকার

একটা বড়ো মাপের মাটির চাকতি, আর সেটাই নাকি অলংকার। যে অলংকার পরা হয় ঠোঁটের মধ্যে। এমনটাই রীতি ইথিওপিয়ার বেশ কিছু উপজাতির। এর মধ্যে মুরসি উপজাতির মধ্যেই এই রীতি সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। ইথিওপিয়ার উত্তরে তুরকানা হ্রদ এবং ওমো উপত্যকার মধ্যে বসবাস মুরসি, সুরি এবং মেকান উপজাতির মানুষদের।

এই অলংকারের পোশাকি নাম ‘ধেবি আ তুগোইন’ বা ইংরেজি তর্জমায় ‘লিপ-প্লেট’। সাধারণত বয়ঃসন্ধির পরেই এই অলংকার পরা হয়। মেয়েদের বয়স যখন ১৫-১৬ বছর হয়, তখন তাদের মা বা জনজাতির অন্য কোনো মহিলা প্রাচীন পদ্ধতিতে প্রথমে নিচের ঠোঁট চিরে দেয়। এই চাকতির আকারের ওপরে অনেক সময় মহিলাদের সামাজিক মর্যাদাও নির্ভর করে।

আরো পড়ুন : কিংবদন্তি ফ্রেডি মার্কারির শৈশব কেটেছিল ভারতে

মোটামুটি ৪ সেন্টিমিটার ব্যাসের একটা গর্ত তৈরি করে সেখানে কাঠের ব্লক গুঁজে দেওয়া হয়। যতদিন ক্ষতস্থানের ঘা না শুকিয়ে যায়, ততদিন এই কাঠের টুকরোটি বের করা হয় না। ঘা শুকিয়ে গেলে সেই টুকরো বের করে নিয়ে কাঠ বা মাটির তৈরি অন্য চাকতি বসিয়ে দেওয়া হয়। এইসব চাকতিও আবার নানা রকমের। কারোর চাকতি নিরেট, তার মধ্যেই নানা ধরনের নকশা আঁকা। কারোর চাকতির মধ্যে আবার নানা রকমের ছিদ্র। প্রত্যেকেই নিজেকে সাজিয়ে তুলতে চান নিজের মতো করে।

আফ্রিকার এই উপজাতিগুলির মধ্যে ব্যক্তি স্বাধীনতাকে সম্মান জানানোর রীতিও চিরকালীন। আর তাই কেউ কোনো প্রথার বিষয়েই কাউকে জোর করেন না। তবে কয়েক দশক আগে পর্যন্ত তাঁদের কাছে এটাই ছিল সৌন্দর্যের ধারণা। বর্তমানে সেই ধারণা খানিকটা বদলেছে। ইউরোপীয় সংস্কৃতির প্রভাব পড়ছে উপজাতিগুলির মধ্যেও। ফলে অনেকেই আর এই ধরনের অলংকার পছন্দ করছেন না। তবে এর জন্য কোনো ধরনের বৈষম্যের মুখে পড়তে হয় না মহিলাদের।

আরো পড়ুন : লোভনীয় মিষ্টি দরবেশ বানাবেন কীভাবে?

ইউরোপের বহু পর্যটকের বিশ্বাস ছিল, এই অলংকার মহিলাদের বিবাহের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। লিপ-প্লেটের আয়তনের উপর নাকি নির্ভর করে তাদের কন্যাপণের পরিমাণ। তবে নৃতাত্ত্বিক ডেভিড টার্টন গবেষণা করে দেখিয়েছেন, এই দুইয়ের মধ্যে কোনো সম্পর্ক নেই। অনেক ক্ষেত্রেই বিবাহের সময় মহিলাদের ঠোঁটে প্লেট বসানো থাকে না। তাতে কন্যাপণের ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হয়নি। অন্যদিকে আরেকদল ইউরোপীয়ের মতে, মুরসি ও সুরি উপজাতির মানুষরা মহিলাদের দাসের মতো ব্যবহার করত। আর তারই চিহ্ন ছিল এই প্লেট। তবে এই মতেরও কোনো প্রমাণ মেলেনি এখনও।

ভালোবাসার পক্ষে থাকুন, নিবিড়-এর সঙ্গে থাকুন

Image by Peter Wieser from Pixabay

About author

Articles

সমাজ ও সংস্কৃতির বাংলা আন্তর্জাল পত্রিকা ‘নিবিড়’। বহুস্বর এবং জনগণের সক্রিয়তা আমাদের রাজনৈতিক অবস্থান।
নিবিড় ডেস্ক
Related posts
ফিচারবিদেশমনন-অনুধাবন

পৃথিবীর দীর্ঘতম রেলপথ গড়ে উঠল কীভাবে?

ট্রান্স সাইবেরিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্ক পৃথিবীর দীর্ঘতম রেলপথ যা রাশিয়ার দূরবর্তী ও প্রত্যন্ত অঞ্চল সাইবেরিয়ার সঙ্গে মস্কোকে যুক্ত করেছে। ৯২৮৯ কিলোমিটার লম্বা এই রেলপথ দুটি শাখার মাধ্যমে চিন, মঙ্গোলিয়া ও উত্তর কোরিয়াকেও যুক্ত করেছে। ১৯১৬ সাল…
Read more
ফিচারবিদেশমনন-অনুধাবন

বিশ্বের সবচেয়ে ছোটো স্তন্যপায়ী প্রাণী

বিশ্বের সবচেয়ে ছোটো বাদুড়। আবার বলা যেতে পারে বিশ্বের সবচেয়ে ছোটো স্তন্যপায়ী প্রাণী। নাম তার ‘বাম্বলবি ব্যাট’। পুরো বিশ্বে ১২০০টিরও বেশি প্রজাতির বাদুড় রয়েছে। তবে এদের মধ্যে সবচেয়ে ছোটোটি শুধু থাইল্যান্ড এবং মায়ানমারের কয়েকটি গুহায়…
Read more
ফিচারবিদেশমনন-অনুধাবন

বিশ্বের গভীরতম জায়গার রহস্য

মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জ থেকে ২০০ কিলোমিটার পূর্বে বিস্তৃত বিশ্বের গভীরতম মহাসাগরীয় অঞ্চল, যা ৫০ কিলোমিটার লম্বা এবং ৬৯ কিলোমিটার চওড়া, তার নাম দেওয়া হয়েছে নিকটবর্তী দ্বীপপুঞ্জের নামে। এটি মারিয়ানা ট্রেঞ্চ বা মারিয়ানা খাত নামে বিখ্যাত। সুগভীর…
Read more

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *